বুধবার | ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮

কাপ্তাই লেকে ১লা মে থেকে তিন মাসের জন্য মৎস্য আহরন ও পরিবহন নিষিদ্ধ

প্রকাশঃ ১৫ এপ্রিল, ২০১৮ ১১:০৭:৪৫ | আপডেটঃ ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৬:২৩:৪৯  |  ৬৮৫

সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। চলতি প্রজনন মৌসুমে মাছের সুষ্ঠু প্রাকৃতিক প্রজনন ও বংশ বিস্তারে রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে মাছ ধরা নিষিদ্ধ হচ্ছে। আজ রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের এক সভায় কাপ্তাই লেকে আগামী ১লা মে থেকে ৩১জুলাই পর্যন্ত তিন মাসের জন্য সব ধরনের মাছ শিকার, আহরণ, পরিবহন ও বাজারজাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

রোববার রাঙামাটি জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে নিষেধাজ্ঞার আদেশ জারির ব্যাপারে সিদ্বান্ত নেয়া হয়।  রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে সভায়  বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন রাঙামাটি কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক নৌ-বাহিনীর কমান্ডার আসাদুজ্জামান,অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শারমিন আলম, সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ ইউছুফ সিদ্দিকী, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা: সুমনী আক্তার, এনডিসি সৈয়দ মাহাবুবুল হক, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শাহিদা আক্তারসহ মৎস্য অধিদপ্তর, কাপ্তাই হ্রদের মৎস্য ব্যবসায়ি, স্থানীয় জেলেদের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া নিষেধাজ্ঞা চলাকালে কাপ্তাই হ্রদে সব ধরনের মৎস্য আহরণ, বিপণন এবং পরিবহন নিষিদ্ধসহ হ্রদে কারেন্ট জাল, কাথা জাল, বেড়া জাল, মশারি জাল এবং ফাঁস জালসহ কোনো কিছু দিয়ে মাছ ধরা যাবে না। পাশাপাশি হ্রদে মৎস্য উৎপাদন বাড়ানোর জন্য রাঙামাটি ফিশারিঘাট, জেলা পরিষদঘাট, লংগদু, বাঘাইছড়ি, কাপ্তাই, ডিসি বাংলোঘাটসহ সুবিধাজনক জায়গায় মাছের পোনা অবমুক্তকরণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া হ্রদে মাছ শিকার বন্ধকালে জেলে পরিবারদের সহায়তায় ভিজিএফ কার্ডের বিপরীতে চাল বিতরণ করা হবে।


প্রসঙ্গত: প্রতি বছর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বৃহত্তম কৃত্রিম জলরাশি রাঙামাটি পার্বত্য জেলার বিশাল কাপ্তাই হ্রদে চলতি মৌসুমে মাছের সুষ্ঠু ও প্রাকৃতিক প্রজনন, বংশ বৃদ্ধি, মজুদ এবং ভারসাম্য রক্ষার স্বার্থে সব ধরনের মৎস্য আহরণ, পরিবহন ও বিপণনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জেলা প্রশাসন। এ সময়ে আদেশটি কার্যকর করতে জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ মৎস্য কর্পোরেশনের (বিএফডিসি) পাশাপাশি আইনশৃংখলা বাহিনীসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো সহায়তা করে থাকে। 

অর্থনীতি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions