শুক্রবার | ১৬ এপ্রিল, ২০২১

প্লাস্টিক বর্জ্যের কুফল সম্পর্কে সচেতনতার বার্তা দিচ্ছে রোভার সদস্যরা

প্রকাশঃ ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০৯:৪৭:৪০ | আপডেটঃ ১৬ এপ্রিল, ২০২১ ১০:৩৭:৫২  |  ২৫৭
সিএইচটি টুডে ডট কম, দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি)। খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলায় বাংলাদেশ স্কাউটস'র সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য বিভাগ পরিচালিত প্লাস্টিক টাইড টার্নার চ্যালেঞ্জ ব্যাজ এর চ্যাম্পিয়ন পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছে দীঘিনালা সরকারি ডিগ্রি কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের সদস্যরা।

শুক্রবার (২৬ফেব্রুয়ারি) সকালে দীঘিনালা উপজেলায় দীঘিনালা সরকারি ডিগ্রি কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের সদস্যরা বাংলাদেশ স্কাউটস'র সমাজ উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য বিভাগ পরিচালিত প্লাস্টিক টাইড টার্নার চ্যালেঞ্জ ব্যাজ এর চ্যাম্পিয়ন পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে উপজেলার বিভিন্ন দোকান, হোটেল, মটর গ্যারেজ মালিক কর্মচারীকে প্লাস্টিক সামগ্রীর বর্জ্যে ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে ধারনা দেয়।

এতে অংশ নেয় খাগড়াছড়ি জেলা রোভার এর সাবেক সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি রোভার মোঃ সোহানুর রহমান, দীঘিনালা সরকারি ডিগ্রি কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের সিনিয়র রোভার মেট মোঃ ইব্রাহিম হোসেন ও রোভার মেট শামীম ফরহাদ।

খাগড়াছড়ি জেলা রোভার স্কাউট লিডার প্রতিনিধি ও জেলা রোভারের মিডিয়া টীমের প্রধান মোঃ দিদারুল আলম (রাফি) জানান, 'প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি সামগ্রী পলিথিন, বোতল, বিভিন্ন প্যাকেটজাত বর্জ্য মাটি সহজে ধ্বংস করতে পারে না। বছরের পর বছর মাটিতে থেকে যায়। এতে মাটি দূষন হয়ে উর্বরতা কমে যায়। প্লাস্টিক দ্রব্য আগুনে পোড়ানো ছাড়া ধ্বংস করা যায় না। আমার সকলে সচেতন হলে প্লাস্টিক ব্যবহার পর বর্জ্য নিদির্ষ্ট স্থানে ফেলে আগুনে পুড়ে ধ্বংস করতে পারি। আমরা আরো সচেতন হলে নিজ নিজ বর্জ্য আলাদা আলাদা পাত্রে রাখতে পারি। এই বিষয়গুলো নিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা রোভারের সদস্যরা কাজ করছে।'

খাগড়াছড়ি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions