বৃহস্পতিবার | ২২ অক্টোবর, ২০২০
বান্দরবানে

বান্দরবানে ওয়ার্ল্ড ভিশন এরিয়া প্রোগ্রামের এর সমাপনী অনুষ্ঠিত

প্রকাশঃ ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৪:০৪:৫৪ | আপডেটঃ ২১ অক্টোবর, ২০২০ ০৬:৩১:৪৫  |  ২২৯
সিএইচটি টুডে ডট কম, বান্দরবান। বান্দরবানে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর এরিয়া প্রোগ্রাম এর সমাপনী ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৩ সেপ্টেম্বর (বুধবার) সকালে বান্দরবানের ফরেস্ট হিল রিসোর্টে বিএনকেএস এবং ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর আয়োজনে এই এরিয়া প্রোগ্রাম এর সমাপনী ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বিএনকেএস এর নির্বাহী পরিচালক হ্লা সিং নু এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ শফিউল আলম।
 
এসময় অনুষ্ঠানে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বিএনকেএস এর প্রকল্প পরিচালক উবানু মারমার সঞ্চালনায় এসময় উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য সিং ইয়ং ¤্রাে, বান্দরবান সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান য়ই সা প্রু মারমা, বান্দরবান পৌরসভার কাউন্সিলর উজলা তংচঙ্গ্যা, সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উক্যনু মার্মা, বান্দরবান প্রেসক্লাবের সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনু, বিএডিসির উপ-পরিচালক নাজিদ তঞ্চঙ্গ্যা, বান্দরবান শহর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো: সোহেল, সিনিয়র সাংবাদিক বুদ্ধজ্যোতি চাকমা, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর বান্দরবান এপিসি ম্যানেজার পিন্টু এলর্বাট পিরিছ, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর বান্দরবান কার্যালয়ের কর্মকর্তা যোসেফ ত্রিপুরা।

অুনষ্টানে বান্দরবানের বিএনকেএস ও ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর এরিয়া প্রোগ্রাম এর কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিশু ফোরাম নেত্রী, বাগানচাষী তোয়া ম্রোসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বক্তব্য রাখতে গিয়ে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর বান্দরবান এপিসি ম্যানেজার পিন্টু এলর্বাট পিরিছ বলেন, টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে রেখে, বান্দরবান এপি এ অঞ্চলের লক্ষিত জনগোষ্ঠীকে দারিদ্রতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করার উদ্দেশ্যে তাদের আর্থসামাজিক, জীবন ও জীবিকার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে মা ও শিশু স্বাস্থ্যের উন্নয়ন, সবার জন্য মানসম্পন্ন শিক্ষা ও শিক্ষায় প্রবেশাধিকার, শিশুর যথাযথ যত্ন ও সুরক্ষা, দুর্যোগে সাড়া প্রদান ও জলবায়ু অভিযোজন বিষেয়ে অধিকতর গুরুত্ব প্রদান করেছে। মা ও শিশু স্বাস্থ্যের উন্নয়নের জন্য বান্দরবান এপি তার কর্মএলাকায় ব্যাপক কার্যক্রম চালিয়েছে। প্রতিরোধ এবং নিরাময়যোগ্য স্বাস্থ্যসেবা পেয়েছেন ১০,৬৬২ জন। স্পন্সর শিশু নিরাময় ও প্রতিরোধযোগ্য স্বাস্থ্যসেবা পেয়েছেন ২,২৫৫ জন। ১২,৫০০ জন নারী, পুরুষ ও যুবতী স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক শিক্ষা পেয়েছেন। সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রন বিষয়ে সচেতন হয়েছেন ৩৬০ জন। ১২,৩৬৭ জন উপকারভোগী প্রাথমিক স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। এছাড়াও জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় ৩৭৮ টি নিরাপদ পানির উৎস তৈরি, ৫,৪৪৮ টি স্বল্প খরচের স্বাস্থ্যসম্মত ল্যাট্রিন স্থাপন এবং ৭০ টি ড্রেন নির্মাণ করেছে বান্দরবান এপি।

ওয়ার্ল্ড ভিশন দুর্যোগ ঝুঁকি নিরসন ও জলবায়ু অভিযোজনের উপর বিভিন্ন প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে বান্দরবান এলাকার মানুষকে সক্ষম করে তুলেছে। বান্দরবান এপি এলাকার বড় বড় দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১৪১ জনকে ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মসূচীর আওতায় সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। দুর্যোগের প্রস্তুতি ও আপদকালীন নিরাপত্তার জন্য শিশুসহ ৮হাজার ৭৫০ জনকে সচেতন করা হয়েছে, এর ফলে এখন জনগণ যেকোন দুর্যোগের সময় নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে পারেও সম্পদের রক্ষণাবেক্ষন করতে পারছে।

সুদীর্ঘ ৪৫ বছরের এই পথচলায় ৫হাজার ১শত ৮৮ জন শিশুর জীবন পরিপূর্ণতায় ভরিয়ে দিতে বান্দরবান এপি সরাসরি সহায়তা করেছে। অনেক শিশুই আজ ওয়ার্ল্ড ভিশনের প্রচেষ্টায় স্কুল-কলেজের গন্ডি পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষার আলোয় আলোকিত হচ্ছে। উন্নয়ন সংস্থাটির নিরলস প্রচেষ্টায় সমাজে আজ অনেকেই প্রতিষ্ঠিত। সরকারের সহযোগীতায়, স্থানীয় জনগণের সক্রিয় অংশগ্রহণে এবং ওয়ার্ল্ড ভিশনের অক্লান্ত সেবায় এলাকার জনগণ এখন অনেকটাই স্বাবলম্বী। এখানকার মানুষ এখন নিজেরাই নিজেদের দায়িত্ব নিতে সক্ষম হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ শফিউল আলম বলেন, ১৯৭৫ সালে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ বান্দরবান পার্বত্য এলাকার জনগণের সার্বিক জীবন ও জীবিকার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে এর যাত্রা শুরু করে। পরিবার উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মসূচীর মাধ্যমে এই যাত্রা শুরু হয়।  দীর্ঘ ৪৫ বছরের এই পথচলায় বান্দরবান পার্বত্য জেলার রুমা, রোয়াংছড়ি, লামা ও বান্দরবান সদর এলাকার ১২টি ইউনয়নের ২৪১টি গ্রামের প্রায় ৮৪ হাজার জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দিয়েছে ওয়ার্ল্ড ভিশন। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ শফিউল আলম আরো বলেন, প্রশাসন প্রতিটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবি সংগঠনের কর্মকান্ড কঠোরভাবে নজরদারি করছে এবং যেসমস্ত সংস্থা তাদের কর্মকান্ডের পরিধি বৃদ্ধি করে জনসেবামূলক কাজ অব্যাহত রেখেছে তারা সকলের কাছে প্রশংসিত হচ্ছে।

অুনষ্ঠানে প্রকল্পের সর্বশেষ রির্পোট প্রধান অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ শফিউল আলম এর কাছে হস্তান্তর করেন ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর বান্দরবান এপিসি ম্যানেজার পিন্টু এলর্বাট পিরিছ, বিএনকেএস এর নির্বাহী পরিচালক হ্লা সিং নু এবং শিশু ফোরাম নেত্রীরা।



বান্দরবান |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions