মঙ্গলবার | ২০ অক্টোবর, ২০২০

গুইমারায় ইউপিডিএফ সদস্যকে গুলি করে হত্যা , লাশ নিয়ে গেছে দূর্বৃত্তরা

প্রকাশঃ ০১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১২:১৭:৪৮ | আপডেটঃ ২০ অক্টোবর, ২০২০ ০৬:০৩:৩৩  |  ৭৭২
সিএইচটি টুডে ডট কম, খাগড়াছড়ি। খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারায় দূর্বৃত্তরা বসত ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে জেন্দ্র ত্রিপুরা  (৪৮) নামে ইউপিডিএফর সাবেক সদস্য গুলি করে । গুলি করার পর লাঠি দিয়ে মাথায় বেদমভাবে আঘাত করে  মর্মূষ অবস্থায় রশি দিয়ে বেধে লাশটিও নিয়ে গেছে ওই দূর্বৃত্তরা। সোমবার রাত বারোটার সময়  উপজেলার ফেরকারবারী পাড়ায় এ ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে পুলিশ ,নিরাপত্তা বাহিনী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ঘটনা স্থলে যায়। আশ পাশের এলাকায় অনেক খোজা  খুজি করেও সন্ধান পায়নি জেন্দ্র ত্রিপুরার লাশের। শুধু ঘরের মেঝেতে পড়ে রয়েছে  তাজা রক্ত,দরজায় দেখা যাচ্ছে গুলির ঝাঝরা চিহৃ।

জেন্দ্র ত্রিপুরার স্ত্রী পলিন্দ্রি ত্রিপুরা জানান, রাত বারোটার সময় একদল মুখোশধারী সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ এসে প্রথমে দুই রাউন্ড ফাকা গুলি ছুড়ে । পরে গাছের লাঠি দিয়ে  দরজা ভেঙ্গে ঘরে ডুকে এলোপাথারি গুলি ছুড়ে। এক পর্যায়ে জেন্দ্র ত্রিপুরা গুলিবিদ্ধ হয়্ ।এরপর লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে তারা । এরপর মর্মূষ অবস্থায় রশি দিয়ে বেধে লাঠিতে ঝুলিয়ে তার স্বামীর লাশটিও নিয়ে গেছে ওই  দূর্বৃত্তরা।

তবে স্থানীয়রা বলছেন ভিন্ন কথা। স্থানীয়দের ভাষ্যমতে, জেন্দ্র ত্রিপুরা ইউপিডিএফর সাবেক সদস্য ছিলো। অস্ত্র আইনে জেন্দ্র ত্রিপুরা ৬ বছর হাজত বাসের পর বাড়িতে এসে আপন বড় ভাইয়ের মেয়েকে র্ধষনের অপরাধে নারী শিশু আইনে আবার দশ মাস  হাজত বাস করে । এরপর জামিনে এসে ওই মামলা গুলোতে সে  বারো বছর পলাতক রয়েছে।

আঞ্চলিক সংগঠন ইউপিডিএফের সংগঠক ক্যালাচিং মারমা জানান, জেন্দ্র ত্রিপুরা কখনো ইউপিডিএফের সদস্য ছিলোনা।এ ঘটনার সাথে তারা জড়িত নয়।

এবিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রামগড়(সার্কেল) ফরহাদ জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। তদন্ত পুর্বক ঘটনার বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

খাগড়াছড়ি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions