শুক্রবার | ২২ জুন, ২০১৮

নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় ধসের ঘটনায় ৩জনের লাশ ও ২জনকে জীবিত উদ্ধার

প্রকাশঃ ২১ মে, ২০১৮ ১১:৩৩:৪৫ | আপডেটঃ ২১ জুন, ২০১৮ ০৭:৪৫:৩৩  |  ১৮৩
সিএইচটি টুডে ডট কম, বান্দরবান। বান্দরবানে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমে পাহাড় ধসের ঘটনায় ৩ জনের লাশ উদ্ধার ও ২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা দিকে উদ্ধারকর্মীরা মাটির নিচ থেকে এক নারীসহ ৩ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে।এ ঘটনায় বিকেলে মাটি চাপা পরার ৭ঘণ্টা পর শ্রমিক নুরুল হাকিমকে (২৫) জীবিত উদ্ধার করে রামু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, সুলতান আহম্মদের ছেলে শ্রমিক আবু আহম্মদ (৩০), মো.শাহাজাহানের ছেলে মো. জসিম (২৫) ও নারী শ্রমিক সোনা মেহের (৩৫)।

সোমবার দুপুর ১২টার দিকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুনধুম ইউনিয়নের মনজয় পাড়া এলাকায় পাহাড়ের পাশে একটি মৎস্য খামারের পানি যাওয়ার নালা কাটতে গিয়ে পাহাড় ধসের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় এক নারীসহ ৫ শ্রমিক মাটি চাপা পরে। তাৎক্ষণিক আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় নুর মোহাম্মদ (২৬) নামের এক শ্রমিককে।
পরে দমকল বাহিনী, সেনাবাহিনী, পুলিশ ও বিজিবিসহ স্থানীয়রা উদ্ধার অভিযানে নামে। বিকেলে মাটির নিচ থেকে নুরুল হাকিমকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এক নারীসহ মাটি চাপা পরা বাকি ৩ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম সরোয়ার কামাল জানান, গভীর মাটি চাপা পরায় লাশ উদ্ধারে বেগ পেতে হয় উদ্ধারকারী দলকে। পরে এক্সাবেটর এনে মাটি সরানো হয়। উদ্ধারকারী দলে সেনাবাহিনী, দমকল বাহিনী, বিজিবি, পুলিশ ও স্থানিয় লোকজন অংশ নেয়। সন্ধ্যা ৭টায় উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত করা হয় । তিনি আরো জানান, মাটি চাপা পরার প্রায় ৭ ঘণ্টা পর অলৌকিক ভাবে বেঁচে যান শ্রমিক নুরুল হাকিম,তাকে উদ্ধার করে পাশের রামু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘুমধুমের ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গির আজিজ জানান, মাটি সরাতে গিয়ে নারী শ্রমিকের লাশের পেট ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, লাশগুলো উদ্ধার করে কক্সবাজার হাসপাতালে নেয়ার প্রক্রিয়া চালাচ্ছে পুলিশ।

স্থানীয়রা জানান, মনজয় পাড়া এলাকায় সুপায়ন বড়–য়া নামে জনৈক ব্যবসায়ী তার মাছের খামারে পাহাড় ঘেষে নালা তৈরি করছিলেন। এ জন্য সকাল থেকে ৫ শ্রমিক মাটি কাটছিলেন। নালাটি তৈরীও প্রায় শেষ পর্যায়ে ছিল। সেটির আজ সংস্কার কাজ করতে গেলে পাহাড়ের মাটি শ্রমিকদের উপর পরলে এ ঘটনা ঘটে।

বান্দরবানের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো:মফিদুল আলম জানান, হতাহতদের তালিকা তৈরীর পর তাদের জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে সহায়তা দেয়া হবে।

এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions