শনিবার | ২২ জুন, ২০২৪

বান্দরবানে ৩ কেএনএফ সদস্যর লাশ ময়না তদন্ত শেষে পৌরসভার কাছে হস্তান্তর

প্রকাশঃ ২০ মে, ২০২৪ ০৪:০৪:৩৭ | আপডেটঃ ২১ জুন, ২০২৪ ০১:৪৬:২৯  |  ৩১৫
সিএইচটি টুডে ডট কম, বান্দরবান। বান্দরবানের রোয়াংছড়ি ও রুমা উপজেলা সীমান্তে যৌথবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) তিন সদস্যর লাশ ময়না তদন্ত শেষে বান্দরবান পৌরসভা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। মৃতদেহগুলো নিতে পরিবারের কেউ না আসায় ২০মে (সোমবার) দুপুরে পুলিশের পক্ষ থেকে মৃতদেহ ৩টি বান্দরবান পৌরসভা কর্তৃপক্ষ গ্রহণ করে। পরে পৌরসভার উদ্যোগে বান্দরবানের লাইমি পাড়ার খ্রীষ্ট্রিয় কেন্দ্রীয় শশ্মানে মৃতদেহগুলি দাফন সম্পন্ন করা হয়।

বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মো.সামসুল ইসলাম জানান, যে কোন বেওয়ারীশ লাশ বান্দরবানে পৌরসভার মাধ্যমে সৎকার ও দাফন সম্পন্ন হয় আর এক্ষেত্রে ৩টি মৃতদেহের পরিবারের কেউ না আসায় পুলিশের পক্ষ থেকে লাশগুলো পৌরসভা কাছে হস্তান্তর করা হলে আমরা পৌরসভার ব্যস্থাপনায় ৩টি মৃতদেহ লাইমিপাড়ায় শশ্মানে দাফন সম্পন্ন করেছি।

পুলিশ জানায়, মৃতদেহগুলি পার্বত্য এলাকার সশস্ত্র সংগঠন কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) এর ৩জন সদস্যর। আর ৩জনই বান্দরবানের রুমা উপজেলার বাসিন্দা এডি থাং বম (২৪), রুয়াল সাং নুয়াম বম (২৩) ও রুয়াল মিন লিয়াম বম (২০)।

প্রসঙ্গত : রোববার (১৯ মে) দুপুরে বান্দরবান জেলার রোয়াংছড়ি রৌনিন পাড়ার দেবাছড়া ও রুমার পাইক্ষ্যং পাড়ার সীমান্তবর্তী এলাকার গভীর অরণ্যে পার্বত্য এলাকার সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) আস্তানার সংবাদ পেয়ে সেখানে অভিযান চালায় যৌথবাহিনীর সদস্যরা। এসময় কেএনএফ সন্ত্রাসীরা যৌথবাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে যৌথবাহিনীর সদস্যরাও পাল্টা গুলি করে। এতে কেএনএফের তিন সদস্য নিহত হয়। ঘটনাস্থল থেকে তিনটি দেশি বন্দুক, কার্তুজ, সামরিক পোশাক ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩টি মৃতদেহ উদ্ধার করে রাতে বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গে নিয়ে আসে।

এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions