খাগড়াছড়িতে গুজবে জনমনে আতংক

প্রকাশঃ ১৯ এপ্রিল, ২০১৮ ১১:৩৮:১৯ | আপডেটঃ ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৯:২৯:০৫
সিএইচটি টুডে ডট কম, খাগড়াছড়ি। খাগড়াছড়িতে গুজব ছড়িয়ে আতঙ্ক ও পরিবেশ অশান্ত করার পায়তারা চালাচ্ছে স্বার্থান্বেষী মহল। বিগত কিছুদিন ধরে আবারও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় হয়ে ভুয়া পোষ্ট দিয়ে জনমনে আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। সচেতন নাগরিকদের অভিমত তাদের প্রতিহত করা না গেলে পাহাড়ে বড় ধরণের সংঘাত সৃষ্টি হতে পারে।
গত কয়েকদিন ধরে অধিকাংশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারকারীর পোষ্টে অসমর্থিত সূত্রে গোলাগুলি, মৃত্যু, অপহরণ, হরতাল-অবরোধসহ পাহাড়ী বাঙালীদের মাঝে বিদ্বেষমূলক প্রচারণা চালানোর দৃশ্য ভেসে আসছে। এসব পোষ্টের বেশীর ভাগই ভুয়া ও বিভ্রান্তমূলক বলে প্রমাণিত হচ্ছে। পাহাড়ের শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অশান্ত করতে কিছু দুষ্টু লোক এমন অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

বুধবার(১৮ এপ্রিল) রাতে একাধিক ব্যক্তির সাথে মুঠোফোনে আলাপে উঠে আছে গুজব আতঙ্কের বিভিন্ন তথ্য।  ঢাকা থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী(নিরাপত্তার স্বার্থে নাম ব্যবহার হয়নি) জানান, ঢাকাগামী নৈশকোচ থেকে মাটিরাঙায় পাহাড়ী লোকজনকে নামিয়ে মারধর করা হচ্ছে বলে শুনেছি। এমন পোষ্ট দেখার পর অনেকে শেয়ার করে ভাইরাল করে দিচ্ছে। তাৎক্ষণিক এতে করে আতঙ্কগ্রস্ত হতে হয়।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাজমুল আবেদীন বলেন, বর্তমান সময়ে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অনেক শক্তিশালী। বিভিন্ন ঘটনার ভুয়া পোষ্টে অনেক সময় বিব্রত হতে হয়। পাহাড়ে এ সমস্যা আরও বেশী প্রকট। ভুয়া পোষ্টে পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের মতো ঘটনা ঘটার নজির রয়েছে। এক্ষেত্রে নেতিবাচক তথ্য প্রচারকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।



সম্প্রতি সময়ে পাহাড়ে খুন, অপহরণ বেড়ে যাওয়ায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তন্মধ্যে গুজব ও বিভ্রান্তকর তথ্যে আরও বেশী নাজুক হচ্ছে পাহাড়ের প্রেক্ষাপট। মাটিরাঙার তিন যুবক অপহরণ ও ত্রিপুরা যুবকের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনাকে পুজিঁ করে স্বার্থান্বেষীরা ফেসবুকে উস্কানিমূলক তথ্য ছড়াচ্ছে। বাংলা ও ইংরেজী ভাষার পাশাপাশি চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা ভাষায় পোষ্ট করা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বুধবার সন্ধ্যা থেকে মাটিরাঙায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বিরাজ করছে শিরোনামে ফেসবুকে পোষ্ট আসতে থাকে।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো: রাশেদুল ইসলাম বলেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অস্থিতিশীল করতে অনেকে পায়তারা চালাচ্ছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অটুট রেখে তাদের প্রতিহত করতে হবে।

সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions