বিএনপি হরতাল ডাকলে জেএসএস পিসিপি পিকেটিং করে: দীপংকর তালুকদার (ভিডিওসহ)

প্রকাশঃ ০৮ এপ্রিল, ২০১৮ ০৮:৩৭:৩০ | আপডেটঃ ২৬ মে, ২০১৮ ০৫:৫৯:১৫

সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার বলেছেন, শান্তি চুক্তির পর বিএনপির নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেছিল, আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় ওরফে সন্তু লারমার হাত বাঙালীর রক্তে রঞ্জিত। তার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী হাত মিলিয়েছে। তাই খালেদা জিয়া শান্তি চুক্তি চান না। আবার খালেদা জিয়ার বক্তব্যে পাল্টা বক্তব্যে দেন সন্তু লারমা। আর এখন আমরা দেখছি বিএনপি হরতাল ডাকে জেএসএস পিসিপি পিকেটিং করে। আমরা আওয়ামীলীগ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য আন্দোলন করি, বিএনপি চুপ চাপ ঘরে বসে আছে। এখন সন্তু লারমা বলছে, আমরা জেলা আওয়মামীলীগ শান্তি চুক্তি বিরোধী। সন্তু লারমা নিজেই শান্তি চুক্তি বিরোধীদের সাথে আতাঁত করছে । যারা শান্তি চুক্তি মানে না, তারা কি করে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করবে। আমসত্ব থেকে আম হয় কাঁঠাল থেকে নয়, তাই চুক্তি করেছে আওয়ামীলীগ বাস্তবায়নও করবে আওয়ামীলীগ।

রোববার সকালে রাঙামাটি যুব মহিলার লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেন।


দপিংকর তালুকদার আরো বলেন, জাতীয় রাজনীতির ¯্রােত যেন পাহাড়ে প্রবেশ করতে না পারে, তার জন্য এখানে কিছু আঞ্চলিক রাজনীতির শক্তি সব সময় বাঁধা দেয়। আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে ঠেকানোর জন্য আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলে সন্ত্রাসীরা  আওয়ামীলীগের কর্মীদের খুন করছে, মারধর করছে, জোর করে পদত্যাগ করতে বাধ্য করছে বন্দুকের নলের মুখে। কিন্তু যাদের নাম আমরা মিডিয়াতে দেখছি তারা কি সত্যি সত্যি পদত্যাগ করছে ?

তিনি আরো বলেন, যখন তারা দেখলো বন্দুকের নল দিয়ে জোর করে ২০১৪ সনের মত নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারবে না, তখন তারা আরেক প্রক্রিয়ায় নেমেছে তারা ১৪দলের থেকে সমর্থনের জন্য লবিং করছে।  যারা ২০১৪ সনে বলেছিল  আওয়ামীলীগের কাছ থেকে পাহাড়ীরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তারাই আবার বলছে ১৪দল থেকে সমর্থন নিবে। একবার বলছে আওয়ামীলীগ থেকে পাহাড়ীরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে আবার ১৪দলে গিয়ে আওয়ামীলীগের উপর বৈতরনী পার হতে চাইবেন এটা তো হবে না, রাঙামাটিতে ১৪দল নেই আছে আওয়ামীলীগ। তাই আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের বোকা ভাবার কারন নেই, আর  প্রধানমন্ত্রী  এখানকার সব খবরই রাখেন।

দীপংকর তালুকদার আরো বলেন, ইউপিডিএফ এর সঙ্গে পার্বত্য জনসংহতি সমিতির তৃণমূল পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে। বৈঠক শেষে তারা একসাথে খাওয়া-দাওয়াও করেছে। কিন্তু আমরা এত দিন ধরে শুনে আসছি, আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমা চিৎকার করে বলতেন ইউপিডিএফ শান্তি চুক্তি বিরোধী। ইউপিডিএফকে নিষিদ্ধ করতে হবে, কিন্তু এখন তারা একসঙ্গে যুক্ত হয়ে বলছে, আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিরোধীতা করতে হবে।


সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions