শুক্রবার | ১৬ এপ্রিল, ২০২১

রাঙামাটি জেলা প্রশাসককে বিদায় সংবর্ধনা দিলো পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড

প্রকাশঃ ০১ মার্চ, ২০২১ ১০:৩৪:২২ | আপডেটঃ ১৬ এপ্রিল, ২০২১ ০৯:৫৪:১৩  |  ৩২৪
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে রাঙামাটির জেলা প্রশাসকের বদলিজনিত কারণে বিদায়ী সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।  গতকাল বিকালে ভেদভেদীস্থ পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের কেন্দ্রীয় রেস্ট হাউজের অতিথি সভা কক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, এনডিসি উপস্থিতিতে বিদায়ী সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের  চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, এনডিসি এর সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভার আয়োজনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় সংবর্ধিত অতিথি  এ কে এম মামুনুর রশিদকে বিদায়ী সংবর্ধনা দেয়া হয়। 

সভায় সভাপতি বলেন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলায় যতজন জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে গেছেন তম্মধ্যে বিদায়ী সংবর্ধিত অতিথি জেলা প্রশাসক  এ কে এম মামুর রশিদ অন্যতম একজন মেধাবী, দক্ষ ও পরোপকারী সরকারি কর্মকর্তা। সকল বিভাগের সাথে সমন্বয় করে রাঙামাটি জেলাকে শান্তিতে রেখেছেন। রাঙামাটির মানুষের কাছে আপনার পরোপকারীর কথা চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আপনি যেখানে যান পরবর্তী চাকরি জীবন আরো উন্নতি লাভ করুক।
পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য পরিকল্পনা ও সদস্য প্রশাসন উপসচিব ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী বলেন, বিদায় সংবর্ধিত অতিথি  এ কে এম মামুনুর রশিক জেলা প্রশাসক হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার পরিচয় দেখিয়েছেন। জেলা প্রশাসক হিসেবে ৩বছর রাঙামাটি জেলায় দায়িত্ব পালনকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডকে সর্বদা সহযোগিতা করেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড পরিচালনা বোর্ড সভায় নিয়মিত উপস্থিত থেকে বিভিন্ন সুপরামর্শ দিয়েছেন। এজন্য বোর্ডের পক্ষ থেকে বিদায়ী অতিথি জেলা প্রশাসকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান সরকারের অতিরিক্ত সচিব  মোঃ নূরুল আলম নিজামী বলেন, বিদায় জেলা প্রশাসক  এ কে এম মামুনুর রশিদ রাঙামাটির জেলা প্রশাসন হিসেবে অত্যন্ত দক্ষ ও  মেধাবী কর্মকর্তা ছিলেন। রাঙামাটির শিশু পার্ক নির্মাণের প্রচেষ্টা এবং তাঁর সহযোগিতার মনোভাব সত্যি প্রশংসা দাবিদার। একজন জেলা প্রশাসক এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড পরিচালনা বোর্ড সদস্য হিসেবে বিভিন্ন সময় রাঙামাটি জেলার পাড়াকেন্দ্রী পরিদর্শন করেছেন। এছাড়া তিনি বোর্ডকে বিভিন্নভাবে সাহায্য সহযোগিতা করে গেছেন। তাই বিদায়ী অতিথির জন্য বোর্ডের দরজা সবসময় খোলা থাকবে।

অনুষ্ঠানে বিদায়ী অতিথি জেলা প্রশাসক বলেন, রাঙামাটি শহরকে নিয়ে সাজানোর জন্য আমার অনেকগুলো স্বপ্ন ছিল। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য আর্থিকভাবে অনেক সহযোগিতা করেছে। তাই পার্বত্য চট্টগ্রাম চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের প্রতি কৃতজ্ঞ। বিভিন্ন বয়সের বাচ্চাদের জন্য বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে রাঙামাটি শিশু পার্ক নির্মাণ, ডিসি বাংলো পার্ক, বিভিন্ন ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অবদান অনস্বীকার্য। এছাড়া আমি রাঙামাটি জেলার সেবা গ্রহীতা সাধারণ জনগণ যাতে কম সময়ের মধ্যে সহজভাবে সেবা পেতে পারে সে লক্ষ্যে মানুষের কল্যাণে আপ্রাণ দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করেছি। রাঙামাটিতে দীর্ঘ ৩বছর চাকরিকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড পরিদর্শন করার সুভাগ্য হয়েছে। তিনি উপস্থিত সকলের কাছে দোয়া করেন।

এসময় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সরকারের উপসচিব সদস্য পরিকল্পনা ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, সরকারের উপসচিব সদস্য বাস্তবায়ন  মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ, মিশ্র ফল চাষ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম, খাগড়াছড়ি নির্বাহী প্রকৌশলী  মোঃ মুজিবুল আলম, রাঙামাটি নির্বাহী প্রকৌশলী চলতি দায়িত্ব  তুষিত চাকমা, গবেষণা কর্মকর্তা  কাইংওয়াই ম্রো, বাজেট ও অডিট অফিসার  মোঃ নুরুজ্জামান, চলতি দায়িত্ব সহকারী সচিব  সাগর পাল, টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের পরিকল্পনা ও মূল্যায়ন  মোহাম্মদ এয়াছিনুল হক, মিশ্র ফল চাষ প্রকল্পের সহকারী প্রকল্প পরিচালক  মোঃ কামরুজ্জামান, মিজ ডজী ত্রিপুরা তথ্য কর্মকর্তা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মোঃ জাকির হোসেনসহ বোর্ড ও বোর্ডের আওতায় বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনার শেষে অনুষ্ঠানের ফুলের তোড়া, ক্রেস্ট ও বিভিন্ন উপহার সামগ্রী দিয়ে বিদায়ী সংবর্ধিত অতিথি এ কে এম মামুনুর রশিদকে বিদায়ী সংবর্ধনা জানানো হয়।

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions