শনিবার | ১৬ জানুয়ারী, ২০২১

রাঙামাটি জেলা পরিষদে দুদকের অভিযান

প্রকাশঃ ২৩ নভেম্বর, ২০২০ ১০:৩৯:০৯ | আপডেটঃ ১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ০২:২৬:৪৩  |  ১০৭৮
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে অভিযান চালিয়েছে, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে সোমবার দুপুরে অভিযানটি পরিচালনা করে দুদক রাঙামাটি অফিস।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ বাস্তবায়িত জেলার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়। এসব অভিযোগ সরাসরি দুদক প্রধান কার্যালয়ে পাঠিয়েছেন অভিযোগকারীরা। অভিযোগ নিয়ে তথ্যপ্রমাণাদির অনুসন্ধানে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ কার্যালয়ে অভিযান চালায় দুদক রাঙামাটি অফিস। এ সময় অভিযোগ সংশ্লিষ্ট উন্নয়ন প্রকল্পের তালিকা, নথিপত্র ও বিল-ভাউচার তলব করা হয়েছে। অভিযান পরিচালনা করেছেন, দুদক রাঙামাটি অফিসের সহকারী পরিচালক জিএম আহসানুল কবির, আবুল বাশার ও একজন কনস্টেবল।

অভিযান পরিচালনাকারী কর্মকর্তা দুদক রাঙামাটি অফিসের সহকারী পরিচালক জিএম আহসানুল কবির ও আবুল বাশার জানান, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের বাস্তবায়িত বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগ পাঠানো হয়েছে সরাসরি প্রধান কার্যালয়ে। প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে তথ্যপ্রমাণাদি খোঁজা হচ্ছে। এজন্য অভিযোগ সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের বিল-ভাউচারসহ বিস্তারিত নথিপত্র উদ্ধারে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে অভিযান চালানো হয়েছে। এ সময় প্রয়োজনীয় কাজে পরিষদের মুখ্যনির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী প্রকৌশলী অফিসের বাইরে থাকায় কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। তবে পরিষদের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা অফিসে ফিরলে দু’য়েক দিনের মধ্যে নথিপত্রের বিস্তারিত কপি সরবরাহে কথা দিয়েছেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা।

দুদক রাঙামাটির তদন্তকারী কর্মকর্তারা বলেন, অভিযোগ সংশ্লিষ্ট প্রকল্পগুলোর তালিকাসহ বিস্তারিত নথিপত্র হাতে পেলেই আমরা সরাসরি প্রকল্প এলাকায় সরেজমিন তদন্তে যাব। সরেজমিনকালে অভিযোগকারীসহ স্থানীয় লোকজনের সাক্ষ্যপ্রমাণাদি নেয়া হবে। এসব তথ্যপ্রমাণাদি নিয়ে বিস্তারিত তদন্ত প্রতিবেদন প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হবে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে জানতে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে একাধিকবার কল দিলেও রিসিভ করেননি রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। পরে ফোনে যোগাযোগ করা হলে পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী বিরল বড়–য়া বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি জানেন না। তাকে কিছুই জানানো হয়নি।

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions