শিরোনামঃ

একান্ত আলাপচারিতায় নতুন পৌর পিতা আকবর হোসেন চৌধুরী

সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতি স্থাপন করাই হবে আমার প্রথম কাজ

বিশেষ প্রতিনিধি, সিএইচটি টুডে ডট কম। রাঙামাটি পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র ও জেলা যুবলীগের সভাপতি আকবর হোসেন চৌধুরী বলেছেন, পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর আমার প্রথম কাজ হবে পৌর এলাকার সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি স্থাপন করা। এখানে বিভিন্ন জাতি গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের বসবাস, তুচ্ছ ঘটনা অনেক সময় সাম্প্রদায়িক ঘটনায় রুপ নেয় তাই আমি চাই রাঙামাটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি Akbar  Hussan Chawdary AL  copyরক্ষাসহ সকল সম্প্রদায়ের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করা।
তিনি পাহাড়ের জনপ্রিয় অনলাইন সিএইচটি টুডে ডট কম এর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন।

“যুবনেতা আকবর হোসেন চৌধুরী ছাত্রজীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ১৯৮৯ সালে রানী দয়াময়ী উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৯০-১৯৯১ সালে ছাত্রলীগের কালিন্দিপুর আঞ্চলিক শাখার সাধারন সম্পাদক, ১৯৯২ সালে বৃহত্তর বনরুপা ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি,১৯৯৪ সালে রাঙামাটি সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯৬ সালে রাঙামাটি সরকারী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি, ২০০০ সালে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, ২০০৪ সালে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ২০০৭ সালে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও ২০১২ সাল থেকে রাঙামাটি জেলা যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া রাজনীতির পাশাপশি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি রাঙামাটি জেলা ইউনিটের ২০১২-২০১৪ সালের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ গত ৩০ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের একত্রিত করে দলীয় ব্যানারে রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। ”

সিএইচটি টুডে ডট কম এর সাথে আলাপচারিতায় রাঙামাটি পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, আমি প্রথমে রাঙামাটি পৌরবাসিসহ সকল সম্প্রদায়ের মানুষকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি, কারন আমার উপর আস্থা ও বিশ্বাস রেখে সকলে মিলে পৌরবাসির সেবা করার জন্য যে রায় দিয়েছে তা আমি যথাযথভাবে পালন করব। যদিও আমি একটি দলের ব্যানারে মেয়র নির্বাচিত হয়েছি কিন্তু পৌরসভাকে দলীয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত করব না, পৌরসভা থাকবে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে সকলের জন্য উন্মুক্ত।

আপনারা জানেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস, এখানে বিভিন্ন সময় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টা করা হয়। আওয়ামীলীগ যেহেতু একটি অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক দল এবং আমি সে দলের একজন কর্মী হিসেবে অতীতে ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় আমি মাঠে ময়দানে কাজ করেছি, এখন তা আরো বেশী করে করব। আমার প্রথম কাজ হচ্ছে রাঙামাটিকে সকল সম্প্রদায়ের সম্প্রীতির শহর হিসেবে গড়ে তোলা। এ জন্য আমি সকলের সহযোগীতা কামনা করছি।

এক প্রশ্নের জবাবে আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, পৌরসভা নির্বাচনের বিজয়টা আমার একার নয়। এটা আওয়ামীলীগের বিজয়। আওয়ামীলীগের প্রতি বিশেষ করে, এ অঞ্চলে পাহাড়ী-বাঙ্গালীর ঐক্যের প্রতিক সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেতা দীপংকর তালুকদারসহ আওয়ামীলীগ ও এর অংগ-সহযোগী সংগঠনের সকল স্তরের নেতা-কর্মীসহ দলমত নির্বিশেষে সকলের পরিশ্রমের ফসল আমার এ বিজয়।
আরেকটা বিষয় হচ্ছে, আওয়ামীলীগ একসাথে ঐকবদ্ধভাবে জনগনকে নিয়ে কাজ করলে আমাদের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবেনা। আমি আওয়ামীলীগের সকল নেতা কর্মীসহ সকলের কাছে কৃতজ্ঞ।

পর্যটন শহর রাঙামাটিকে নিয়ে পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, বাংলাদেশের মানুষের অত্যন্ত একটি প্রিয় শহর রাঙামাটি। এখানে পর্যটন শিল্প বিকাশে যা যা করণীয় তা করা হবে। আমি দায়িত্ব নেয়ার পর পর্যটনের উন্নয়নে এখানকার অন্যান্য যে সকল সরকারী-বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা রয়েছে যেমন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড, জেলা পরিষদসহ সকলের সাথে আলোচনা করে সমন্বয়ের মাধ্যমে পর্যটনের উন্নয়নে কাজ শুরু করবে। তবে পর্যটনের সাথে সংশ্লিষ্ট কিছু দৃশ্যমান উন্নয়ন কাজ পৌরসভার পক্ষ থেকে শুরু করা হবে।

পৌরসভা নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার জানাতে গিয়ে মেয়র বলেন, প্রথমে আমার কাজ হবে রাঙামাটি শহরকে সুন্দরভাবে গড়তে সকলকে নিয়ে সমন্বয়ের মাধ্যমে একটি মাষ্টার প্ল্যান তৈরী করা। সকলের মতামত নিয়ে আমি কাজ করতে চাই। তাছাড়া পর্যটন শহর রাঙামাটিকে সুন্দরভাবে ও পর্যটন উপযোগী করে গড়ে তুলতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হবে, তার মধ্যে- দুর্গন্ধমুক্ত পৌর শহর গড়ে তোলা, বর্তমানে শহরের বিভিন্ন স্থানে যে সমস্ত স্থায়ী ডাস্টবিন রয়েছে তা ভেঙ্গে ভ্রাম্যমান কিছু ডাস্টবিন পৌরসভার পক্ষ থেকে তৈরী করা হবে যাতে যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা জমে না থাকে। এসব স্থানে ময়লা ফেলাসহ সেসব ময়লা কখন পরিস্কার করা হবে তার একটি নির্দেশনা পৌরসভা থেকে সকলকে জানিয়ে দেয়া হবে। তবে এজন্য শহরের বিভিন্ন ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সকলে যাতে সহযোগীতার মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসে তার জন্য পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন পর্যায়ে বৈঠকের আয়োজন করা হবে।DSC00484

পৌরবাসির স্বাস্থ্যসেবার বিষয়ে নব নির্বাচিত মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, আমি পৌর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার আগে ও রাঙামাটি রেডক্রিসেন্ট সোসাইটিসহ বিভিন্ন জনসেবামূলক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত ছিলাম। এ বিষয়ে আমার একটি পূর্বপরিকল্পনা ছিল। যেহেতু জনগনের রায়ে আমি পৌর মেয়র নির্বাচিত হয়েছি, জনগনের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করকে পৌরসভা থেকে বিভিন্ন কার্যকর উদ্যোগ গ্রহন করা হবে। কারন রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন এলাকায় অনেক দুস্থ ও গরীব মানুষ আছে, যাদের পক্ষে আর্থিক সমস্যার কারনে চিকিৎসাসেবা গ্রহন করা অনেক সময় সম্ভব হয়না। আমি দায়িত্ব নেয়ার পরে যাতে রাঙামাটি পৌরসভার পক্ষ থেকে বিনামূল্যে মাসে একটি স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্পের আয়োজন করা হয় তার উদ্যোগ গ্রহন করা হবে। এছাড়া রাঙামাটি পৌরসভার পক্ষ থেকে দুস্থরোগীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে যাতে একটি এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করা যায় তার উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।
পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী আরো বলেন, যুব সমাজ হচ্ছে দেশের সম্পদ। রাঙামাটি শহরের যুবসমাজকে মাদকমুক্ত করতে যা যা করণীয় আমি করব, কারন যুবসমাজ নষ্ট হয়ে গেলে আমাদের সকলের ভবিষ্যৎ ধংসের মুখে পড়বে। এ এলাকার সন্তান হিসেবে যুবসমাজকে মাদকের আগ্রাসন থেকে রক্ষা করতে প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে সম্মিলিত উদ্যোগ নেয়া হবে।
পরিশেষে নব নির্বাচিত মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী পৌর নির্বাচনে নির্বাচিত করার জন্য পৌরবাসির কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, জনগন আমার উপর যে আস্থা ও বিশ্বাস রেখে রায় দিয়েছে, আমি তার যথাযথ মূল্যায়ন করবো। আমাকে মেয়র হিসেবে না দেখে অতি আপনজন হিসেবে. নিজের ভাই,বন্ধু, ছেলে হিসেবে সহযোগীতা প্রদানের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাই। চলার পথে আমার কোন ভূল হলে তা আমাকে জানাবেন, আমি সঠিকভাবে পৌরবাসির কাছে থেকে কাজ করতে চাই। আমার দরজা পৌরবাসির জন্য সবসময় খোলা থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email

Share This:

খবরটি 201 বার পঠিত হয়েছে


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

ChtToday DOT COMschliessen
oeffnen